৮ম অধ্যায়ঃ বিক্রয় প্রসার ও বিজ্ঞাপন।

উৎপাদন ব্যবস্থাপনা ও বিপণন / উৎপাদন ব্যবস্থাপনা ও বিপণন (২য় পত্র)

৮ম অধ্যায়ঃ বিক্রয় প্রসার ও বিজ্ঞাপন।

বিক্রয় প্রসার ও বিজ্ঞাপন, নাম শুনেই আমরা বুঝতে পারছি এটা নিশ্চয়ই ক্রেতাদের আকর্ষণের কোন কৌশল । হ্যা, সত্যিই তাই।এগুলো হলো প্রসার হাতিয়ার যার দ্বারা ক্রেতাদের পন্য ক্রয়ে প্ররোচিত করা হয়।

এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায়। এ অধ্যায় থেকে সবসময় ১ টি সৃজনশীল প্রশ্ন পাওয়া যায়। আর তার উত্তর করার জন্য পুরো অধ্যায়টি পড়তে হয় না। শুধু গুরুত্বপূর্ণ টপিকগুলো চিনতে পারলেই হয়ে যায়। চলো তাহলে দেখে আসি শুধু গুরুত্বপূর্ণ টপিকগুলো যাতে কষ্ট করে সবকিছু পড়তে না হয়।

গুরুত্বপূর্ণ টপিকসঃ

  • বিপণন প্রসার ও এর হাতিয়ারসমূহ।
  • বিক্রয় প্রসার ও কৌশলসমূহ।
  • বিজ্ঞাপনের ধারণা ও মাধ্যমসমূহ।
  • প্রচার  ও বিজ্ঞাপনের মাঝে পার্থক্য। 
  • বিজ্ঞাপন কি অপচয় না বিনিয়োগ? 

CQ স্পেশালঃ

  • বিপণন হাতিয়ার ও বিজ্ঞাপন মাধ্যমসমূহ যেনো ভালোকরে ক্লিয়ার থাকে।


বিপণন প্রসার ও এর হাতিয়ারসমূহঃ

বিক্রয় বৃদ্ধির অন্যতম হাতিয়ার হিসেবে বিপণন ধারণার উদ্ভব হয়।“দীর্ঘমেয়াদে বাজারে টিকে থাকা ও বাজার শেয়ার বৃদ্ধির জন্য বিপণন হাতিয়ার গুলো সাহায্যে ক্রেতা বা ভোক্তাদের পন্য ক্রয়ে প্ররোচিত করার প্রক্রিয়াই হলো বিপণন প্রসার বা বাজারজাতকরণ প্রসার”।

বিপণন প্রসার মিশ্রণের ৫ টি হাতিয়ার রয়েছে।এগুলো হলো,

১. বিজ্ঞাপন ২. ব্যক্তিক বিক্রয় ৩. প্রচার

৪. বিক্রয় প্রসার ৫. প্রত্যক্ষ বিপণন

এই অধ্যায়ে আমাদের আলোচ্য বিষয় হলো বিক্রয় প্রসার ও বিজ্ঞাপন ।


বিক্রয় প্রসার ও কৌশলসমূহঃ

বিক্রয় প্রসার হলো,স্বল্পমেয়াদে পন্য বা সেবার বিক্রয় বৃদ্ধির কৌশন বা প্রক্রিয়া। বিক্রয় প্রসারের মাধ্যমে ক্রেতার মধ্যে ব্রান্ড আনুগত্য সৃষ্টি হয়। এমনকি তাৎক্ষণিক বিক্রয় বৃদ্ধির জন্যও বিক্রয় প্রসার বেশ কার্যকরী। 

বিক্রয় প্রসার নতুন পন্য বাজারে পরিচিত করণে সহায়তা করে। বর্তমান ক্রেতাদের মাঝে পন্য ব্যবসারের হার বৃদ্ধি করে। বিক্রয়িকতার কাজ সহজতর করে।বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের প্রচুর উদ্দেশ্য থাকলেও এর মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে একটি এবং তা হলো, “বিক্রয় বৃদ্ধি করা”।

এবার দেখে নেই বিক্রয় প্রসারের হাতিয়ার গুলো,

ক) ভোক্তা বিক্রয় প্রসার হাতিয়ার বা ভোক্তার জন্য বিক্রয় প্রসার হাতিয়ারঃ

১. বিনামূল্যে পন্য বিতরণ, ২. কুপন, ৩. অর্থ ফেরত প্রদান, ৪. মেয়াদি গ্যারান্টি প্রদান

৫. উপহার প্রদান, ৬. লটারি ৭. শুভেচ্ছা প্রদান,   ৮. প্রিমিয়াম

খ) ব্যবসায়িক বিক্রয় প্রসার হাতিয়ারঃ

১. বাট্টা ২. ভাতা ৩. বিজ্ঞাপন ভাতা ৪. প্রদর্শন ভাতা

৫. ক্রয় ভাতা ৬. ফ্রি পন্য ৭. বিশেষ পুরষ্কার ৮. ব্যবসায়ীদের গিফট 

গ) ব্যবসায় বিক্রয় প্রসার হাতিয়ারঃ

১. বানিজ্যিক মেলা ও সম্মেলন ২. বিক্রয় প্রতিযোগিতা 


বিজ্ঞাপনের ধারণা ও মাধ্যমসমূহঃ

ল্যাটিন শব্দ “Advertere” হতে Advertising শব্দটি এসেছে। সুনির্দিষ্ট উদ্যোক্তা কতৃক পন্য বা সেবার নৈর্ব্যক্তিক উপস্থাপনাই হলো বিজ্ঞাপন। বিজ্ঞাপনের সাধারণ উদ্দেশ্য হলো পন্যের চাহিদা সৃষ্টি ও বিক্রয় বৃদ্ধি করা। বিজ্ঞাপন একটি একমুখী যোগাযোগ মাধ্যম।

বিজ্ঞাপনের মুখ্য উদ্দেশ্য গুলো হলো,

  • পন্যের নতুন বাজার সৃষ্টি করা।
  • বর্তমান পন্যের চাহিদা বজায় রাখা।
  • পন্যের উৎপাদন বৃদ্ধি। 
  • প্রতিষ্ঠানের সুনাম সৃষ্টি।
  • প্রতিযোগিতায় টিকে থাকা। 

বিজ্ঞাপন মাধ্যম হলো, যার সাহায্যে বা যাকে অবলম্বন করে পন্য বা সেবার সংবাদ বর্তমান এবং সম্ভাব্য ক্রেতাদের নিকট পৌঁছানো হয়। 

পন্যের প্রকৃতি, বিজ্ঞাপনের উদ্দেশ্যাবলী, মাধ্যমের প্রচলন, মাধ্যমের ব্যয়, বাজেট বা সামর্থ্য এবং সরকারি নীতিমালার উপর ভিত্তি করে বিজ্ঞাপন মাধ্যম নির্বাচন করা হয়।

বিজ্ঞাপন মাধ্যমসমূহঃ

১. সংবাদপত্রঃ বিজ্ঞাপনের মাধ্যমগুলোর মধ্যে সংবাদপত্রই সর্বাধিক জনপ্রিয় ও অধিক কার্যকর এবং নিত্যব্যবহার্য পন্যের ক্ষেত্রে এই মাধ্যম সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয়।

২.সাময়িকীঃ সাময়িকী পত্রিকা সাধারণত ২ ধরনের হয়; যথা- সাধারণ পত্রিকা এবং ব্যবসা-বানিজ্য ও শিল্পসংক্রান্ত বিশেষ পত্রিকা।

সাধারণ পত্রিকা শিক্ষিত সম্প্রদায়ের বিভিন্ন ব্যক্তির মধ্যে প্রচারিত হয়। ভোগ্যপণ্য সাধারণ পত্রিকায় এবং উৎপাদকীয় পন্য বিশেষ পত্রিকায় বিজ্ঞাপিত হয়। কিন্তু সংবাদ পত্রের চেয়ে সাময়িকীর পাঠক সংখ্যা কম এবং সীমাবদ্ধ। তাই একে জনমাধ্যম বলা যায় না।

৩. অনলাইনঃ বিজ্ঞাপনের আধুনিক মাধ্যম। খুবই কম খরচে সাধারণ ও সকল শ্রেণির মানুষের কাছে এই মাধ্যমে পন্যের বিজ্ঞাপন দেয়া যায়।

৪. নমুনাঃ পন্যের গুনগুন সম্পর্কে জনসাধারণ যাতে অবহিত হতে পারে তাই ব্যবসায়ী বিনামূল্যে বা নামমাত্র মূল্যে জনসাধারণের কাছে নমুনা বিতরণ করেন।

৫. প্রচারপত্র ও প্রাচীরপত্রঃ পন্যের বিশেষ গুনাগুন সম্পর্কে বিস্তারিত বিবরণ ছোট ছোট কাগজে ছাপিয়ে জনবহুল স্থানে বিতরণ বা বড় বড় হরফে ছাপানো কাগজ দেয়ালে লাগানোর মাধ্যমে বিজ্ঞাপন দেয়া হয়। এর ব্যয় খুব কম।

৬. টেলিভিশনঃ বিজ্ঞাপনের তুলনামূলক ব্যয়বহুল বিজ্ঞাপন মাধ্যম এটি। সংক্ষিপ্ত ভিডিও চিত্রের মাধ্যমে পন্য সম্পর্কে ক্রেতাদের প্ররোচিত করা হয়।

৭. বেতারঃ বেতারে পন্য সংক্রান্ত খবর প্রচার করা হয়। বিজ্ঞাপনের সবচেয়ে প্রাচীন মাধ্যম এটি।

৮. বিজ্ঞাপনী ফলকঃ এটি বর্তমানে বিজ্ঞাপনের খুবই জনপ্রিয় একটি মাধ্যম। জনবহুল রাস্তার মোড়ে, রেল স্টেশনের সামনে, মেলা বা প্রদর্শনীর প্রবেশদ্বারে, বড় শপিংমলে কাঠ বা লোহার ফ্রেমে আটকানো টিনের চাদরে বহুলোকের দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য নান্দনিক বিজ্ঞাপন দেয়া হয়। তবে এটি অত্যন্ত ব্যয়সাপেক্ষ। 


প্রচার  ও বিজ্ঞাপনের মাঝে পার্থক্যঃ

১. সুনির্দিষ্ট উদ্যোক্তা কতৃক অর্থপ্রদত্ত পন্য সংক্রান্ত তথ্যপ্রদান ও প্ররোচিত করার প্রক্রিয়া হলো বিজ্ঞাপন। কিন্তু প্রচারের হলো কোন প্রকার অর্থ প্রদান না করেই কোন মাধ্যমকে ব্যবহার করে জনগনকে জ্ঞাত  করানোর প্রচেষ্টা। যেমনঃ যদি কোন অনুষ্ঠানে ঐ পন্যের সুনাম করা হয় তাহলে এমনিতেই জনসম্মুখে প্রচার হয়ে যাচ্ছে।

২. বিজ্ঞাপনের মূলভিত্তি হলো বিক্রয় বৃদ্ধি ও অর্থ উপার্জন কিন্তু প্রচারের মূল মূল উদ্দেশ্য হলো জনকল্যাণ। 

৩. বিজ্ঞাপন মূলত লিখিত হয় কিন্তু প্রচার লিখিত,মৌখিক উভয় ধরনের হতে পারে।

৪. বিজ্ঞাপনের বিশ্বাসযোগ্যতা তুলনামূলক কম। প্রচারের বিশ্বাসযোগ্যতা অপেক্ষাকৃত বেশি।

৫. বিজ্ঞাপন প্রচারের একটি অংশ কিন্তু প্রচার বিজ্ঞাপনের অংশ নয়। এটি একটি সামগ্রিক রুপ।


#বিজ্ঞাপন কি অপচয় না বিনিয়োগ?

বর্তমান যুগ প্রচারের যুগ,প্রচারেই প্রসার।যে বিজ্ঞাপন পন্য, সেবা, ধারণার মূল্য, গুনাগুন ইত্যাদি সম্পর্কে ভোক্তাদের অবহিত করে তা অবশ্যই কাম্য। কিন্তু ক্ষতিকর পন্য বিক্রয়ের জন্য ভোক্তাদের প্রলোভনের মায়াজালে আটকে ফেলার প্রচেষ্টায় লিপ্ত বিজ্ঞাপন কখনো কাম্য নয়।

বিজ্ঞাপন অপচয় মনে করার কারণ হলো, এটি মূল্য বৃদ্ধি করে, ক্ষতিকর বিজ্ঞাপন দেয়, ভোক্তাদের সাথে প্রতারণা ইত্যাদি। 

আর বিজ্ঞাপনকে বিনিয়োগ মনে করার কারণ হলো সঠিক পন্য সম্পর্কে অবহিত করে, বিক্রয় ও মুনাফা বৃদ্ধি করে, উত্তম পন্য ও সেবার প্রচার, ভোক্তা সচেতনতা বৃদ্ধি করে।

সুতরাং দু একটি ক্ষেত্রে বিজ্ঞাপন অপ্রয়োজনীয় মনে হলেও সবক্ষেত্রে যে তা অপচয় বলে বিবেচিত হবে তা নয়। তাছাড়া জনসচেতনতা বৃদ্ধি করে এবং আইনের আরোপ করে ক্ষতিকর বিজ্ঞাপন নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব। বিজ্ঞাপন হচ্ছে প্রতিযোগিতায় টিকে থাকার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ প্রসার হাতিয়ার। 

তাই এটি নিঃসন্দেহে প্রমানিত যে, “বিজ্ঞাপন অপচয় নয়, বিজ্ঞাপন”।


মারুফ হোসেন মুন্না 

মার্কেটিং বিভাগঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

Leave your thought here

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Free 10 Days

Master Course Invest On Self Now

Subscribe & Get Your Bonus!
Your infomation will never be shared with any third party