অধ্যায় ০৫ঃ দৈনন্দিন জীবনে ইন্টারনেটের ব্যবহার

JSC / তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি

অধ্যায় ০৫ঃ দৈনন্দিন জীবনে ইন্টারনেটের ব্যবহার


আলোচ্য বিষয়ঃ

দৈনন্দিন জীবনে ইন্টারনেটের ব্যবহার,শিক্ষা জীবনে ইন্টারনেটের প্রভাব,দৈনন্দিন সমস্যা
সনাধানে ইন্টারনেটেের ব্যবহার,ইমেইল।


গতানুগতিকঃ শিক্ষা জীবনে ইন্টারনেটের প্রভাব,দৈনন্দিন সমস্যা সমাধানে ইন্টারনেট।


দৈনন্দিন জীবনে ইন্টারনেটের ব্যবহার:
একটা সময় প্রশ্ন ছিলো দৈনন্দিন জীবনের কোন কোন কাজে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারি?

তথ্য প্রযুক্তির উন্নতির ফলে এখন বরং উল্টো প্রশ্নটাই করতে পারি,আমাদের দৈনন্দিন কোন কাজটি করার জন্য ইন্টারনেট ব্যবহার করতে হয় না?
প্রথম দিকে ডেস্কটপ ব্যবহার হতো, তারপর যথাক্রমে ল্যাপটপ, নোটবুক, ট্যাব/প্যাড হলো, এখন স্মার্ট ফোন হলেই যথেষ্ট। প্রতিটি মুহূর্তেই মানুষ ইন্টারনেটের সাথে যুক্ত।আজকাল প্রায় সব প্রতিষ্ঠানই তারবিহীন ওয়ারলেস সার্ভিস দেয়। সেটিকে বলে ওয়াই-ফাই।
দৈনন্দিন জীবনে ইন্টারনেটর বহুবিধ ব্যবহার রয়েছে। যেমন- অনলাইন খবরের কাগজ, জিপিএস, অফিসের কাজে ইন্টারনেট, ইমেইল পড়তে ইন্টারনেট, ভিডিও কল, ই-বুক,বই গান বা চলচ্চিত্রও ইন্টারনেট থেকে ডাউনলোড, কম্পিউটার গেম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইত্যাদি।
তরুন প্রজন্ম আজকাল সামাজিক নেটওয়ার্কে বেশি সময় ব্যয় করছে। কিন্তু ইন্টারনেটের গোলক ধাঁধাঁয় বাস্তব জগতের বিনোদন, খেলাধুলা,বন্ধু-বান্ধব, আত্নীয় স্বজন ইত্যাদি থেকে তারা যেন বিচ্ছিন্ন না হয় সেদিকে দৃষ্টি রাখতে হবে। অর্থ্যাৎ সাইবার জগতের বাইরেও যে সত্যিকার একটি জগত আছে তা যেন তরুন প্রজন্ম উপলব্ধি করে।


শিক্ষাজীবনে ইন্টারনেটের প্রভাব:
আমাদের জীবনে সবক্ষেত্রে যেহেতু ইন্টারনেটের একটি প্রভাব আছে তাই শিক্ষাক্ষেত্রেও তার একটি বড় প্রভাব থাকবে তাতে কোন সন্দেহ নেই। শিক্ষাব্যবস্হা পরিচালনা করা ছাড়াও সরাসরি শিক্ষার ব্যপারে ইন্টারনেটে বড় ভূমিকা রয়েছে। শিক্ষাক্ষেত্রে আমরা নানাভাবে ইন্টারনেট ব্যবহার করে থাকি। যেমন- পরিক্ষার ফলাফল, স্কুল ও
কলেজের বিভিন্ন ভর্তি তথ্য, পাঠ্যবইয়ের ডাউনলোড, প্রতিষ্ঠান পরিচালনার জন্য ইন্টারনেট ব্যবহার, বিজ্ঞান শিক্ষায় বিভিন্ন এক্সপেরিমেন্ট, ইন্টারনেটে বিভিন্ন কোর্স ও ই-বুক ইত্যাদি। একটা সময় ইন্টারনেটে তথ্য খোজার জন্য সবকিছু ইংরেজিতে লিখতে হতো এবং তথ্যগুলো থাকতো ইংরেজিতে।

বাংলাদেশে পিপীলিকা নামে বাংলা সার্চ ইঞ্জিন তৈরী হয়েছে এবং ইচ্ছে করলে বাংলাতে লিখেই প্রয়োজনীয় তথ্য পেতে পারি।


দৈনন্দিন সমস্যা সমাধানে ইন্টারনেটের ভূমিকা:
ইন্টারনেটে বিভিন্ন তথ্য ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকে। শিক্ষা,স্বাস্থ্য,গবেষণা,পরিবহন,বানিজ্য থেকে শুরু করে সরকার, সরকারপদ্ধতি এবং রাজনৈতিক হালচাল প্রায় সকল ধরনের তথ্যই সেখানে রয়েছে।
দৈনন্দিন জীবনে নানা সমস্যা সমাধানের প্রথম হাতিয়ার হচ্ছে তথ্য। ইন্টারনেট থেকে তথ্য সংগ্রহ করে এবং সেটি ব্যবহার করে অনেক সমস্যার সমাধান করা যায়। বিশ্বের জনপ্রিয় তথ্য খোজার সাইট বা সার্চ ইঞ্জিনের অন্যতম হলো গুগল। এতে বাংলা ও ইংরেজি ভাষাতে তথ্য খুজে বের করা যায়। এরকম আরো দুটি ওয়েবসাই আছে যেমন-
(Www.wolframalpha.com) ও (Www.khanacademy.com) যেখান থেকে শিক্ষার্থীরা প্রায় সকল বিষয়েরই তথ্য পেতে পারে। বাংলাদেশের একটি নিজস্ব সার্চ ইঞ্জিন রয়েছে সেটি হলো (Www.pipilika.com) এর মাধ্যমে বাংলাতে তথ্য খোজা যায়। ইন্টারনেট কেবল তথ্য প্রাপ্তিতে সহায়তা করে না বরং কারো তথ্য প্রকাশেও সমানভাবে
সহায়তা করে। এরুপ নানাভাবে ইন্টারনেট তথা তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আমাদের দৈনন্দিন সমস্যা সমাধানে সহায়তা করে।


ইমেইলঃ
ইমেইল কথাটির মানে হলো “ইলেকট্রনিক মেইল” বা ইলেকট্রনিক চিঠি। ইমেইলের মাধ্যমে আমরা কোন লেখা বা ছবি অন্য যেকোনো ইমেইল ঠিকানায় ইলেকট্রনিকভাবে পাঠাতে পারি। ইমেইলের সাথে তুমি যেকোনো ফাইল যুক্ত করে পাঠাতে পারো। বিভিন্ন রকম ফাইল সেটি হতে পারে কোন ওয়ার্ড ডকুমেন্ট বা এক্সেল ফাইল বা ছবি। আজকের দুনিয়ায় ইমেইল ছাড়া অনেক ব্যবসার কথা চিন্তাও করা যায় না।


ইমেইল খোলা-

ব্রাউজার এ প্রবেশের পর আমাদের নতুন ইমেইল ঠিকানা (Account) খুলতে সাইন আপ (Sign up) বা নিবন্ধন করতে হয়। সব সাইটে একটা ফরম পূরন করতে হয়। সাইটের নির্দেশনা অনুসরণ করে শেষে ‘Submit’-এ ক্লিক করলেই হয়ে গেল ইমেইল একাউন্ট বা ঠিকানা। আইডি এবং পাসওয়ার্ডটি গোপনীয় ভাবে সংরক্ষণ করতে হবে।

লিখেছেনঃ
নামঃ বনি ইয়ামিন
বিভাগঃ মানবিক
প্রতিষ্ঠানঃ বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সি আব্দুর রউফ পাবলিক কলেজ,পিলখানা,ঢাকা

Leave your thought here

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Free 10 Days

Master Course Invest On Self Now

Subscribe & Get Your Bonus!
Your infomation will never be shared with any third party